করোনা ভাইরাস আসলে ধাপ্পাবাজি? এটা মিডিয়ার সৃষ্টি? মাস্ক মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়???




মাস্ক মানুষের রোগপ্রতিরোধক্ষমতা কমিয়ে দেয়
করোনা ভাইরাস আসলে ধাপ্পাবাজি। এটা মিডিয়ার সৃষ্টি। মাস্ক মানুষের রোগপ্রতিরোধক্ষমতা কমিয়ে দেয়

করোনা ভাইরাস আসলে ধাপ্পাবাজি! এটা মিডিয়ার সৃষ্টি! মাস্ক মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দেয়???

ভাইরাসের পেছনে আছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনকুবের বিল গেটস। এই তত্ত্ব এতদিন কেবল সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে। এবার বাস্তবে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদও শুরু হলো। লন্ডনের ট্রাফালগায়ার স্কোয়ারে ১০ হাজারের বেশি মানুষ এই বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে। খবর ডেইলি মেইলের
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে দেওয়া নিষেধাজ্ঞা বাতিলেরও দাবি জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা।
তারা করোনা ভাইরাসকে শিশুদের ওপর নির্যাতনের একটি অস্ত্র বলে অভিহিত করেছেন। এমনকি এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারেরও প্রয়োজন নেই। ‘স্বাধীনতার জন্য ঐক্যবদ্ধ হও’ শীর্ষক একটি শোভাযাত্রাও অনুষ্ঠিত হয়। তারা সরকারের মিথ্যা তথ্য প্রচার বন্ধ এবং সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানান। ছবিতে দেখা যায়, ট্রাফালগায়ার স্কোয়ার মানুষে পরিপূর্ণ। সেখানে সাধারণত ৩৫ হাজার মানুষ জড়ো হতে পারেন।
বিক্ষোভকারীদের মুখে কোনো মাস্ক ছিল না। তারা সামাজিক দূরত্বও মানতে চান না।
তারা বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভে অংশ নেন। এতে লেখা ছিল, করোনা ভাইরাস একটা ধাপ্পাবাজি, মাস্ক মানুষের শরীরের প্রতিরোধক্ষমতা হ্রাস করে, ভ্যাকসিনের কোনো দরকার নেই। বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেন ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিক ডেভি ইকে। এতে লেবার পার্টির সাবেক প্রধান জেরেমি করবিনের ভাই পায়ারসও অংশ নেন।
উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসের শুরু থেকেই ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকরা করোনা ভাইরাসকে বিল গেটসের সৃষ্ট বলে দাবি করেন। এর ভ্যাকসিন আবিষ্কার করে বিল গেটস ব্যবসা করতে চান বলেও তাদের অভিযোগ। যদিও বিল গেটস এসব অভিযোগ বারবার অস্বীকার করেছেন।

Collected from Alamgir Alam timeline. Post comments in below;

বিষয়টি এতো ধোঁয়াসামুলক ও বিভ্রান্তিকর যে আমার
স্বল্প জ্ঞানে তা বুঝতে
পারছি না।
তবে বেশীক্ষন মাস্ক পরলে যে ক্ষতিকর প্রভাব পরে তা আমি মার্চ মাসের শেষে বলে দিয়েছি।
নিজের নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড গ্যাস আবার নিজেই ৬০% টেনে নিচ্ছি। এতে রক্তে অক্সিজেনের অভাব পরে যার ফলে অল্পতেই মানুষ কার্যক্ষমতা হারায় বা ক্লান্ত হয়ে পরে।
আমি নিজে ও বিশেষ সময়ে যে গ্যাস মাস্ক পরিধান করে কাজ করেছি পাওয়ার প্লান্টে তা অবস্য ভিন্ন।
ব্রেইনে কিছু টা চাপ পড়ছে বটে। কথা গুলো সঠিক মনে হচ্ছে। আবার বুঝতে অনেক অসুবিধা হচ্ছে। সামান্য কাশিতে যে মৃত্যু গুলো আমার সামনে হলো,,,, সেগুলো আসলে কি ছিল???????????????????????
কিছুই মাথায় ঢুকছে না। আমি করোনা কে আপনার মতো , আপনার মতামত অনুযায়ী ই ভাবতে চেষ্টা করি। মৃত্যু গুলো র কারণে মাথা গোলমাল হয়ে যায়। এটা যে কিভাবে ভাঁওতাবাজি, কতটা ভাঁওতাবাজি, এর ভিতর কি একটা লুকানো আছে, সেটা আপনাকে আরো ভালো ভাবে বুঝে, বিজ্ঞান সম্মত ভাবে, বুঝাতে হবে। আমি আবার ও বলছি, আমি শতভাগ একমত এটা ভাঁওতাবাজি। তবে মৃত্যু গুলো আরও বুঝিয়ে আলোচনা দিন। এক কথায় এটা আমার কাছে …… যাক বোঝাতে পারছি না। ধন্যবাদ লেখককে।




Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*